আসসালামু আলাইকুম সবাইকে স্বাগত জানিয়ে শুরু করছি আমাদের আজকের পর্ব। আমরা যারা অনলাইনে টাকা উপার্জনের কথা ভাবছি তাদের মাঝে অনেক প্রশ্ন থাকে যে, আমরা কোন কাজটি শিখবো? এসইও নাকি ওয়েবসাইট ডিজাইন? ওয়েবসাইটে কাজের সুযোগ বেশি নাকি এসইও তে কাজের সুযোগ বেশি?

আমরা সবাই একটা কনফিউশনে থাকি যে, ক্যারিয়ার হিসেবে কোনটা নিব? ওয়েবসাইট ডিজাইন নাকি এসইও?

সিদ্ধান্ত নেওয়ার আগে অবশ্যই আমাদেরকে জানতে হবে অনলাইন মার্কেটপ্লেস বা ব্যক্তিগত জীবনে কোনটার সবচেয়ে গুরুত্ব বেশি বা কোনটার কাজ সবচেয়ে বেশি?? এই বিষয় গুলো নিয়ে কাজ শেখার আগে এই দুইটার সম্পর্কে ভালোভাবে নলেজ নিয়ে তারপরেই সিদ্বান্ত নিতে হবে। তাহলে চলুন আগে আমরা ওয়েবসাইট ডিজাইন নিয়ে কথা বলি ।

ওয়েবসাইট ডিজাইন

আপনাকে কাজে নামার আগে প্রথমেই জানতে হবে একটি ওয়েবসাইট ডিজাইন মূলত কি কি ল্যাঙ্গুয়েজ এ বা কি কি বিষয় নিয়ে তৈরি করা হয়ে থেকে।

একটা ওয়েবসাইট তৈরিতে প্রথমেই html এবং css দিয়ে ডিজাইন করে নিতে হয়। আরো আকর্ষণ করার জন্যে এখানে জাভাস্ক্রিপ্ট ব্যাবহার করতে হয়।

স্লাইডার এর ক্ষেত্রে আরো অনেক বেশি পরিমান জাভা স্ক্রিপ্ট অবশ্যই ব্যাবহার করে কাজ করতে হয়।

তারপরেই প্রয়োজন হয় এই ওয়েবসাইটের রেসপনসিভ করার। রেসপনসিভ করার পরে এই ওয়েবসাইট কে আবার ডায়নামিক করার দরকার পরে।

রেসপনসিভ করার জন্যে অবশ্যই আপনাকে php বা laravel দিয়ে ডায়নামিক করে নিতে হবে।

এছাড়া আপনি যদি চান তাহলে জাভাস্ক্রিপ্ট দিয়েই একটি ওয়েবসাইট করে নিতে পারবেন।

তার মানে এখন আপনাকে বুঝতেই পারছেন আপনাকে কতগুলো ল্যাঙ্গুয়েজ ব্যাবহার করতে হবে।

আর এই ল্যাঙ্গুয়েজ শিখতে সময় লাগবে :

html শিখতে আপনাকে সময় দিতে হবে 3-4 মাস। Php শিখতে লাগবে 6 মাস। Laravel শিখতে লাগবে এক বসর। আবার জাভাস্ক্রিপ্ট শিখতে লাগবে 6 মাস। তারমানে আপনাকে 2 বসর হাতে নিয়ে শুরু করতে হবে একটি ওয়েবসাইট শিখতে।

ওয়েবসাইট শিখে কাজ পাওয়া যাবে কেমন??

অনলাইনে প্রচুর কাজ রয়েছে এই প্লাটফর্মে। আপনি চাইলে কোথাও জব করতে পারেন আবার অনলাইন plarfrom থেকে কাজ নিয়ে ও কাজ করতে পারেন।

এখানে একটা কথা বলে রাখা ভালো।  একজন ক্লাইন্ট আপনাকে একটা ওয়েবসাইট ডিজাইনের কাজ দিল। তার মানে ওই ক্লায়েন্ট এর সাথে কিন্তু আপনার কাজ এখানেই শেষ। চাইলে অন্য কোনো প্রজেক্ট এ আপনাকে হায়ার করতে পারে আবার নাও করতে পারে।

তার মানে আপনাকে প্রতিটি কাজ ধরতে আপনাকে নতুন নতুন ক্লাইনট ধরতে হবে। এতে করে সবসময় কিন্তু আপনার কাজ নাও থাকতে পারে।

এমন অনেকেই আছেন যারা কাজ শিখে কিন্তু বসে থাকে। তারা কাজ পাচ্ছে না। এখন এসইও নিয়ে কিছু কথা বলি।

এসইও (সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন)

এতক্ষণ আমরা দেখলাম ওয়েবসাইট নিয়ে কাজ করতে আপনার কত সময় ব্যায় হয় এবং সেই তুলনায় কত পরিমাণ কাজ পাওয়া যায়।

ওপর দিকে আপনি যদি এসইও শিখেন তবে আপনাকে কোনো কোডিং করার দরকার হবে না।

অপরদিকে আপনার এসইও শিখতে সময় লাগবে মাত্র 2 থেকে 3 মাস।

আমি এখানে একজন ব্যক্তি কাজ না বুঝলেও এই সময় লাগবে। আর আপনি যদি কাজ ভালো বোঝেন তাহলে আপনাকে সর্বোচ্চ 15 দিন থেকে 1 মাস সময় লাগতে পারে seo শিখতে।

এখন আপনার মনে একটা প্রশ্ন থাকতে পারে ভাই এত অল্প সময়ে কাজ শিখে কি কোনো কাজ পাওয়া যাবে

হা অবশ্যই। শিখতে অল্প সময় লাগলেও আপনার এখন থেকে কাজ পায়ার জন্যে ততটা পরিশ্রম করতে হবে না।

এখন প্রশ্ন থাকতে পারে আমি হয়তো আপনাকে মিথ্যা বলছি। না ভাই এটাই সত্যিই।

তাহলে চলুন একটু এসইও এর ব্যাপারে বুঝে আসি।যে আসলে SEO কি?? এসইও কি এই বিষয় সম্পর্কে জানার জন্যে আমাদের এসইও কি? এই পর্বটি দেখে আসতে পারেন।

তাহলে seo সম্পর্কে ভালো ধারণা পাবেন। তারপরেও আমি শর্টকাট ভাবে বলি। SEO হলো মূলত একটা ডিজিটাল মার্কেটিং এর অনেক বড় একটা পার্ট।

যার মাধ্যমে কেউ গুগোল এ সার্চ করলে আপনার ওয়েবসাইট সবার প্রথমে দেখানোর জন্যে যে প্রসেসগুলো নিয়ে কাজ করতে হয় সেটাই মূলত SEO.

এখন নিশ্চয় আপনি বুঝতে পারছেন এসইও মূলত কি??

এখন কাজ পাওয়ার ব্যাপার যদি বলি। ধরেন আপনি ওয়েবসাইট ডিজাইন এর কাজ করেন। এখন এই সেক্টরে আপনি একটি কাজ করলেই কিন্তু ওই ক্লাইন্টের সাথে আপনার কাজ শেষ হয়ে যায়।

একজন ওয়েবসাইট ডিজাইনের কাজ শেষ মানে আপনার কাজ শুরু। আর সবচেয়ে মজার ব্যাপার হলো, একটি ওয়েবসাইট যত দিন থাকবে ততদিন ওই ওয়েবসাইটের SEO করতে হবে।

ব্যাপারটা আর একটু ক্লিয়ার করা যাক। আপনি যত দিন একটা ওয়েবসাইটকে গুগলের টপ রেজাল্ট এ রাখতে পারবেন ততদিন কিন্তু আপনার ওই ওয়েবসাইটের SEO করতে হবে।

না হলে কিছুদিন পরে আপনার ওয়েবসাইট এর অনলাইন এ খুজে পাওয়া যাবে না। তার মানে বাধ্য হয়েই একটা ওয়েবসাইটের ranking ধরে রাখার জন্যে সারাজীবন SEO করতে হবে। তার মানে প্রতিটি ওয়েবসাইটের জন্যে কিন্তু আপনার এক জন এসইও এক্সপার্ট কে হায়ার করে রাখতে হবে সারাজীবন। তাহলে বুঝতেই পারছেন।

আপনি যদি একটি এসইও এর প্রজেক্ট পান তবে আপনার অবশ্যই 6 মাস থেকে 1 বসর কাজ করতে পারবেন। আর এর মধ্যে আপনার অবশ্যই অন্য একটা ক্লায়েন্ট কিন্তু কাজ দিবে।

আমি অনেককেই দেখেছি যারা এক সাথে 4 থেকে 5 জন বায়ার কে কাজের সাপোর্ট দিয়ে থাকে। এতে করে কিন্তু একজন ওয়েবসাইট ডিজাইনার এর থেকে অনেক বেশি টাকা একজন এসইও অপটিমাইজার ইনকাম করে থাকে।

এখন ধরেন আপনি এসইও এর কোন ক্লাইন্ট পেলেন না। কোন সমস্যা নেই আপনি আপনার নিজের একটি ওয়েবসাইট তৈরি করুন এবং সেখানে এসইও করে গুগল এডসেন্স অথবা অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং করে স্থায়ী একটি ইনকামের সোর্স তৈরি করে নিতে পারেন খুব সহজেই।

তো যাই হোক বন্ধুরা আজকে অনেক কথা বলেছি।

এই বিষয় নিয়ে যদি কোন প্রশ্ন থাকে তাহলে আমাদেরকে Tell me your opinion এই ঠিকানায় জানান। অবশ্যই আমাদের এসইও অপটিমাইজার টিম আপনার প্রশ্নের উত্তর দিবে।

দেখা হবে পরবর্তী পর্বে। তোর সেই পর্যন্ত সবাই ভাল থাকুন সুস্থ থাকুন আজকে এখানেই বিদায় নিচ্ছি আল্লাহ হাফেজ।