প্রত্যেকে সোশ্যাল মিডিয়া ব্যবহার করে। কিন্তু আমরা অনেকেই নিজের সোশ্যাল প্রোফাইলগুলিতে কোনও ট্র্যাফিক সেই ভাবে পাইনা? আচ্ছা আপনি কি জানেন বর্তমানে Social মিডিয়া  পরিবর্তন হতে চলেছে?

আচ্ছালামুয়ালাইকুম . আমি ইমদাদুল হক।  আজ, আমি আপনার সাথে সবচেয়ে বড় সোশ্যাল মিডিয়া ভুলগুলি নিয়ে কথা বলবো , যার ফলে আপনি ভাল সোশ্যাল মিডিয়া তে আগের চেয়ে অনেক করতে পারবেন।

আপনার প্রথম যে ভুলটি এড়াতে হবে তা হ’ল প্রায়শই Social মিডিয়া তে কনটেন্ট পোস্ট করা।

কি অবাক হলেন? তাহলে চলুন একটু বিস্তারিত আলোচনা করে আসি।

অনেকেই বিশ্বাস করে যে, বেশি বেশি ফেসবুকে পোস্ট করলে মনে হয় ভালো হবে। অনেকেই বলে থাকে আরে, আপনি কি ফেসবুকে ভাল করতে চান? তাহলে দিনে অন্তত ১০ বার পোস্ট করুন।

আপনি যত বেশি পোস্ট করবেন, তত বেশি লোক আপনাকে দেখতে পাবে।

এটি টুইটারের জন্যে হয়তো কাজ করতে পারে তবে বেশিরভাগ সোশ্যাল সাইটগুলির জন্য, আপনি যদি খুব বেশি পোস্ট করেন তবে আপনি ভাল করতে পারবেন না।

আপনার কেবলমাত্র নির্দিষ্ট পরিমাণ লোকই আপনাকে অনুসরণ করছে। যদি আপনি অতিরিক্ত তথ্য পোস্ট করে রাখেন তবে আপনি সেগুলির জন্যে কেবল পরিশ্রম করে চলেছেন এবং আপনার ফ্যান ফলোয়ার আপনার বিষয়বস্তুতে উপেক্ষা করা শুরু করবে।

আপনি যদি Social মিডিয়া তে ভালো করতে চান, তবে দিনে একবারের বেশি পোস্ট করার চেষ্টা করবেন না।

আমি লাইভ ভিডিও, বা গল্প বা এই জাতীয় কিছু নিয়ে কথা বলছি না। আমি একটি চিত্র, বা একটি ভিডিও, একটি স্ট্যাটাস আপডেট পোস্ট করার কথা বলছি। দিনে একাধিক পোস্ট না করার চেষ্টা করুন।

দ্বিতীয় যে ভুলটি আপনার এড়াতে হবে তা হ’ল, mediocre বিষয়বস্তু পোস্ট করা।

আপনি যখন জানেন যে, আপনি কেবল দিনে একবার পোস্ট করতে হবে, যখন আপনি দিনে একবার পোস্ট করেন, আর যেই বিষয় নিয়ে আপনি পোস্ট করেন না কেন? সেই কনটেন্ট টি  আশ্চর্যজনক হতে হবে। খুব এট্ট্রাক্টিভ হতে হবে। যেন কেউ একবার দেখলেই ক্লিক করে।

আপনি যেই বিষয় নিয়ে পোস্ট করেন না কেন লোকেরা যদি এটি পছন্দ না করে তবে তারা সেই পোস্ট দেখবে না  বা মন্তব্য করবে না।

আপনি কি জানেন? আপনি যদি এমন বিষয়বস্তু পোস্ট করেন, যা মধ্যম, এবং  আপনার কাছে দুর্দান্ত মনে হয়, তবে হ্যাঁ শব্দটি সহ নীচে একটি মন্তব্য করুন।

এইভাবে আমি জানি আপনি চেষ্টা করছেন আশ্চর্যজনক কনটেন্ট তৈরি করতে। এবং এটি এইভাবে ভাবুন, যদি সেই কন্টেন্টটি এমন কিছু না হয় যা আপনি আপনার বন্ধুদের সম্পর্কে বলবেন, অথবা আপনি শেয়ার করে নেবেন, বা ভাইরাল হওয়ার সামান্য সম্ভাবনা নেই বলে আপনি  মনে করেন, তবে কনটেন্ট ততটা ভালো করবে না।

দুর্দান্ত কনটেন্ট কী তা আপনি যদি না জানেন তবে Buzzsumo তে যান। আপনার সার্চ বাক্স এর মধ্যে কীওয়ার্ড রাখুন। এটি ইতিমধ্যে সামাজিক ওয়েবে কি জনপ্রিয় তা আপনাকে দেখাবে।

আপনি আরও ভাল কনটেন্ট নিয়ে আসতে Buzzsumo এবং সোস্যাল ব্লেডের মতো কনটেন্ট ব্যবহার করতে চান। এইভাবে, আপনি যখনই পোস্ট করবেন, এটি মূলত আশ্চর্যজনক কনটেন্ট।

তৃতীয় ভুলটি যে বেশিরভাগ লোকেরা করছেন তা হ’ল তারা ভিডিওর উপার্জন করছেন না। ভিডিওগুলি ভবিষ্যত। ফেসবুক ইউটিউব লিঙ্কডইন

এই লাইভের সমস্ত খেলোয়াড় আপনার দৃষ্টি আকর্ষণ করতে চান, এমনকি কোনও লাইভ টিভি থেকেও বেশি।

আমি কথা বলছি ‘স্যামসুং টিভি নিয়ে, আপনি জানেন, এটি একটি বড় এলসিডি। প্রযুক্তিগতভাবে, আপনার কাছে আর বড় টিভি নেই, তারা সবাই পাতলা এবং আপনার দেওয়ালে সুন্দর ভাবে বসে যায়।

তবে আপনি যে বিষয়টি পেয়েছেন, তাতে এই সামাজিক সাইটগুলি আপনার মনোযোগের জন্য দিন রাত চেষ্টা করে যাচ্ছে। তারা চায় আপনি এইচবিও, বা এনবিসি, বা স্কাই স্পোর্টস না দেখে ফেসবুকে থাকেন।

সুতরাং, সে কারণেই তারা facebooke এ আপনাকে ভিডিও সামগ্রী আপলোড করতে চায়। আপনি যদি ভিডিও সামগ্রী আপলোড করেন তবে আপনি কেবল কোনও ফটো বা কোনও পাঠ্য আপডেট আপলোড না করলেও  আপনি আরও ২-৩ গুণ বেশি ভিজিটর পাবেন।

বহু লোক যে চতুর্থ ভুলটি করে তা হ’ল তারা প্রথম দিকের সময়ে ব্যাস্ত থাকে না।

বেশিরভাগ সোশ্যাল অ্যালগরিদমগুলি যেভাবে কাজ করে তা হ’ল প্রথম প্রথম দিকের কাজ গুলো খুব ভাল  ভাবে কাউন্ট করে, এবং এটি ক্রমাগত ভাইরাল হয়।

এসইও সহ এটি একটি দীর্ঘমেয়াদী কাজ। আপনি কনটেন্ট প্রকাশ করুন, প্রথম প্রথম আপনি কখনও ভাল করতে পারবেন না।

৩০ দিন বা ছয় মাস পরে যদি কনটেন্টটি সত্যিই ভাল হয় তবে আপনি ভাগ্যবান।

অনেক ক্ষেত্রে এটি এক বছর সময় নিতে পারে।  সুতরাং আপনার যদি কোনও ইমেল তালিকা থাকে তবে আপনার ইমেল তালিকাটি প্রচার করুন।

বা প্রযুক্তিগতভাবে, সেই ইমেল তালিকায় আপনি যে ভিডিওটি বা স্ট্যাটাস আপডেট করেছেন তা প্রচার করুন, এইভাবে, আপনি আরও বেশি কনটেন্ট প্রকাশ করতে পারেন।

আপনার যদি একটি সাবস্ক্রাইব বা সাবস্ক্রাইবারের তালিকা থাকে তবে সেই  সরঞ্জামগুলি থেকে, যখন আপনার কোনও স্ট্যাটাস আপডেট করবেন তখন এগুলি আপনার সামাজিক প্রোফাইলে প্রেরণ করুন।

এইভাবে এটি আরও ভিউ হবার সুযোগ করে দিবে এবং গ্রাহক এটি আরো দেখতে পারবেন । এবং এইভাবে, পরবর্তী 30 দিন, 60 দিনের মধ্যে, এটি ইউটিউবে উচ্চতর স্থান পাবে।

অথবা পরবর্তী 24 ঘন্টা ধরে, এটি ফেসবুকে আরও বেশি ভিউ এবং শেয়ার পাবে।

আমি আপনাকে যে সর্বশেষ ভুলটি সম্পর্কে অভিহিত করতে চাই তা হলো লোকজনের প্রশ্নের উত্তর না দেওয়া।

আপনি যদি আমাকে কোন প্রশ্ন জিজ্ঞাসা করেন এবং আমি উত্তর না দিয়ে থাকি তবে তা আপনার সাথে অভদ্র হবে। সোশ্যাল মিডিয়া এভাবেই কাজ করে।

আপনার অন্য ব্যক্তির সাথে জড়িত হওয়া দরকার। সুতরাং যখন তারা কোনও মন্তব্য দেয়, নিশ্চিত হয়ে নিন যে আপনি প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন। এমনকি তাদের মন্তব্য এর উত্তর আরো সহজ করে দিন , কারণ সোশ্যাল মিডিয়া একটি দ্বিমুখী রাস্তা।

আপনার সাথে যোগাযোগ করা আমার পক্ষে যেমন গুরুত্বপূর্ণ তেমনি আমার সাথে যোগাযোগ করা আপনার পক্ষেও গুরুত্বপূর্ণ এই বিষয় টাকে ভুলে গেলে চলবে না।

যদি আপনি আরও কথোপকথন করেন এবং প্রতিটি মন্তব্যে আপনার  প্রতিক্রিয়া পাওয়া যায়, তবে আপনি খুব সহজেই সোশ্যাল মিডিয়াতে খুব দ্রুত জনপ্রিয় হয়ে উঠবেন।

অনেক ক্ষেত্রে এটি এক বছর সময় নিতে পারে।  সুতরাং আপনার যদি কোনও ইমেল তালিকা থাকে তবে আপনার ইমেল তালিকাটি প্রচার করুন। বা প্রযুক্তিগতভাবে, সেই ইমেল তালিকায় আপনি যে ভিডিওটি বা স্ট্যাটাস আপডেট করেছেন তা প্রচার করুন, এইভাবে, আপনি আরও বেশি কনটেন্ট প্রকাশ করতে পারেন।

যদি আপনি এই ভুলগুলি করা বন্ধ করে দেন তবে আপনি সোশ্যাল ওয়েবে আরও বেশি করে সন্ধান করতে পারবেন।

আপনার লিঙ্কডইন, ইউটিউব, ফেসবুক, টুইটার, এই কৌশলগুলি আপনাকে অবসসই সাহায্য করবে যদি আপনি উপরোক্ত বিষয় গুলো মাথায় নিয়ে কাজ করে থাকেন । পড়ার জন্য ধন্যবাদ.

যারা নতুন আছেন তাদের হয়ত বুঝতে একটু সমস্যা হতে পারে। যদি কোন সমস্যা থেকে থাকে তাহলে আমাদের ওয়েবসাইটে Tell me your opinion এই পেজে গিয়ে আমাদেরকে প্রশ্ন করতে পারেন।

আমরা খুব দ্রুত আপনার সেই প্রশ্নের উত্তর দেওয়ার চেষ্টা করব। তো সবাই ভালো থাকবেন, সুস্থ থাকবেন, আগামী পর্বে দেখা হবে। তো সেই পর্বের আমন্ত্রণ জানিয়ে আজকে এখানেই বিদায় নিচ্ছি আল্লাহ হাফেজ।